সোমবার, ১৫ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

হযরত আলী (আ.)-এর বাণী- নাহজুল বালাগা থেকে

পোস্ট হয়েছে: ডিসেম্বর ৩০, ২০১৩ 

news-image

হযরত আলী (আ.) কুমায়েল ইবনে যিয়াদকে লক্ষ্য করে বলেন : ‘হে কুমায়েল! নিজ পরিবারবর্গকে হুকুম কর তারা যেন প্রত্যুষে উত্তম গুণাবলি অর্জন করে। আর ঘুমন্ত ব্যক্তির প্রয়োজন পূরণে রাতের অন্ধকারে গমন করে। যে সত্তার কর্ণ আওয়াজসমূহকে আয়ত্তে রাখে তাঁর কসম করে বলছি, কোন ব্যক্তি কারো অন্তরে আনন্দ সঞ্চার করলে অবশ্যই আল্লাহ তাআলা তার কল্যাণে সেই আনন্দের পরিবর্তে করুণা সৃষ্টি করেন। এরূপ ব্যক্তির ওপর কোন বিপদ আপতিত হলে সেই করুণা পানি প্রবাহিত হওয়ার ন্যায় বিপদের প্রতি প্রবাহিত হয়। ফলে অপরিচিত উটকে যেভাবে বিতাড়িত করা হয় সেই করুণাও বিপদকে অনুরূপভাবে তাড়িয়ে দেয়।- নাহজুল বালাগা, উক্তি ২৪৯

হযরত আলী (আ.) বলেছেন : ‘যখন সম্পদ হারিয়ে নিঃস্ব হবে তখন দান-খয়রাত করে আল্লাহর সাথে ব্যবসা করবে।’- নাহজুল বালাগা,  উক্তি নং ২৫০

হযরত আলী (আ.) বলেছেন : ‘বিশ্বাস ভঙ্গকারীর সাথে বিশ্বাস রক্ষা করা আল্লাহ তাআলার নিকট বিশ্বাস ভঙ্গের শামিল। আর বিশ্বাস ভঙ্গকারীর সাথে বিশ্বাস ভঙ্গ করা আল্লাহর নিকট বিশ্বাস রক্ষা করার নামান্তর।’- নাহজুল বালাগা, উক্তি নং ২৫১

হযরত আলী (আ.) বলেছেন : ‘করুণা প্রদর্শন করে অনেককে অবকাশ দেয়া হয়। আবরণ এঁটে অনেককে ধোঁকায় ফেলা হয়। অনেককে উত্তম বাক্য বলে ফিতনায় ফেলা হয়। অন্যায়ে অবকাশ দান করার ন্যায় আর কাউকে আল্লাহ তাআলা পরীক্ষা করেননি।’- নাহজুল বালাগা, উক্তি নং ২৫২

(নিউজলেটার, জুলাই ১৯৯১)