শুক্রবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৮ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

সাড়ে তিনশ ব্রিটিশ শিক্ষকের ইসরায়েলি বিশ্ববিদ্যালয় বয়কট

পোস্ট হয়েছে: অক্টোবর ২৮, ২০১৫ 

news-image

ফিলিস্তিনিদের ওপর অসহনীয়ভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন করার প্রতিবাদে ইসরায়েলি বিশ্ববিদ্যালয় বয়কট করবে বলে জানিয়েছে শতশত ব্রিটিশ শিক্ষাবিদ।

মঙ্গলবার গার্ডিয়ান পত্রিকায় এ সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ এক পৃষ্ঠার একটি বিজ্ঞাপন প্রকাশ করেছেন যুক্তরাজ্যের এসব শিক্ষাবিদ।

এ ঘোষণাপত্রের শিরোনাম দেয়া হয়েছে, ‘ফিলিস্তিনিদের অধিকারের বিষয়ে যুক্তরাজ্যের শিক্ষাবিদরা অঙ্গীকারাবদ্ধ।’ ৭২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে ৩৪৩ জন শিক্ষাবিদ ইসরায়েলি বিশ্ববিদ্যালয় বয়কট করেছেন।

বিজ্ঞাপনে বলা হয়, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ইসরায়েল অবৈধভাবে দখলদারিত্ব সৃষ্টি করায় আমরা গভীরভাবে বিক্ষুব্ধ। ইসরায়েল ফিলিস্তিনি জনগণের সব ধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে।  সেখানে উপনিবেশ প্রতিষ্ঠা করতে তারা দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ বলেই মনে হয়।

শিক্ষাবিদরা আরও বলেন, ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠান থেকে তারা আর কোন আমন্ত্রণ গ্রহণ করবেন না। তারা তাদের কোন সম্মেলনে অর্থায়ন ও অংশগ্রহণ করবেন না এবং তাদের কোন অনুষ্ঠান আয়োজন ও পৃষ্ঠপোষকতা করবেন না বলেও ঘোষণা দিয়েছেন।

ইসরায়েল যতদিন না আন্তর্জাতিক আইন ও মানবাধিকারের সার্বজনীন নীতির প্রতি শ্রদ্ধা না দেখাবে ততদিন তারা তাদের সিদ্ধান্তে অটল থাকবেন বলে জানিয়েছেন।

এদিকে লন্ডন ইকোনমিকস স্কুলের এক মুখপাত্র জোনাথান রোজেন হেড বয়কটের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বলেন, ইসরায়েলি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ফিলিস্তিনি জনগণের ওপর নিপীড়ন ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের মূল কেন্দ্রবিন্দু।

ইসরায়েলের প্রযুক্তি বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান টেকনিয়ন। এখানে বিশেষ এক ধরনের প্রযুক্তি স্থাপন করা হয়েছে যার মাধ্যমে গাজা ভূখণ্ডের টানেলগুলোকে আলাদা করে সনাক্ত করা হয়। এবং মানুষহীন অস্ত্রে সজ্জিত বুলডোজার দিয়ে ফিলিস্তিনিদের বাসাবাড়ি ধংস করা হয়।

এদিকে বেন গুরিয়ন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় তারা দাবি করেছে, ইসরায়েল দখলদারিত্ব সৃষ্টির ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে এবং তারা পানি ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক বৈষম্য সৃষ্টি করেছে।

ইসরায়েলকে সাংস্কৃতিক বয়কট জানিয়ে বিখ্যাত লেখক হেরি পটার, জেকে রাওলিং এবং ২ বারের বুকার পুরস্কার জয়ী সাহিত্যিক হিলারি ম্যান্টেলসহ ১৫০ ব্রিটিশ লেখক ও শিল্পীর স্বাক্ষরিত এক চিঠির এক সপ্তাহ পর এ ধরনের বয়কট করলেন ব্রিটিশ শিক্ষাবিদরা। সূত্র: আরব নিউজ।