মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

শরণার্থী শিবিরের দেয়ালে ফিলিস্তিনের ইতিহাস

পোস্ট হয়েছে: জুন ১৩, ২০১৬ 

news-image
দেখে মনে হবে দেয়ালের পলেস্তারা খসে গিয়েছে। এবং তা আশ্চর্যজনকভাবে কোনো স্থির চিত্রে পরিণত হয়েছে। আসলে তা নয়। দেয়ালের চুনকামকে এক শিল্পীর হাত কিভাবে রদবদল করে সত্যিকারের প্রতিবাদী চিত্রশিল্পে পরিণত করেছে তা না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না। আর এভাবে ফিলিস্তিনের ইতিহাস দেয়ালের গায়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে জর্ডানের রাজধানী আম্মানে আল হুসেইন ফিলিস্তিনি উদ্বাস্তু শিবিরে। ওই শিল্পী দেয়ালের চুনকাম নিপুণ হাতে ঘষে ঘষে এমন সব চিত্র দাঁড় করিয়েছেন যেখানে ইসরায়েলের আগ্রাসন থেকে শুরু করে ফিলিস্তিনি শিশুর শৈশবে ঘুড়ি উড়ানোর চিত্রও চমৎকারভাবে ফুটে উঠেছে । দেয়ালের পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়া অনেক পথিক এসব চিত্র দেখে থমকে উঠছেন। কোন খরচ ছাড়াই এমন এক বিস্ময়কর শিল্প দেয়ালের গায়ে হয়ত এর আগে কখনো দেখা যায় নি।
download (2)এবার শিল্পীর পরিচয় দেয়া যাক। স্প্যানিশ পথশিল্পী পেজাক এধরনের রীতি অনুসরণ করে দেয়ালে ছবি আঁকেন। তার বক্তব্য হচ্ছে দেয়ালের একটা ক্ষুদ্র অংশ অপসারণের মাধ্যমে আমি চাই একেবারে নিখরচায় ফিলিস্তিনীদের বয়ে চলা সময়কে ধারণ করতে। ইসরায়েলের দখলদার মনোভাব ফুটে ওঠে এতে। কখনোবা ফিলিস্তিনি বালকের শৈশব। কখনো ফিলিস্তিনিদের গৌরবের ইতিহাস।
এদিকে, পিজাকের এই চিত্র কর্ সম্পর্কে ফেসবুক পাতায় সিন্ডি নামে এক ব্যক্তি মন্তব্য করেছেন, পিজাকের  চিত্রকর্ম একেবারে অকৃত্রিম,অতুলনীয় ও হৃদয়স্পর্শী। দখলদার ইহুদিবাদীদের নৃশংসতার দৃশ্য এ ধরনের সৃজনশীল চিত্রকর্মের মাধ্যমে জনসমুক্ষে তুলে ধরা জরুরি।শিল্পকর্ম হলো নরম শক্তির হাতিয়ার এবং বৈশ্বিক সচেতনতায় একটি উত্তম মাধ্যম।
 
download (6)উল্লেখ্য, আম্মানে ১৯৫২ সালে স্থাপিত ওই উদ্বাস্তু শিবিরে ৮ হাজার শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছিল ১৯৪৮ সালে আরব ইসরায়েল যুদ্ধের পর। জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী ০.৪২ বর্গ কিলোমিটারের ওই শিবিরে এখন উদ্বাস্তুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯ হাজার।