শনিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

মার্চে আসছে ইরানের পারমাণবিক ব্যাটারি

পোস্ট হয়েছে: ডিসেম্বর ১০, ২০১৭ 

news-image

ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার (এইওআই) প্রধান আলী আকবার সালেহি জানিয়েছেন, ইরানের পরমাণু বিজ্ঞানীরা পারমাণবিক ব্যাটারি তৈরির প্রযুক্তি অর্জন করেছেন। আগামী ২০১৮ সালের মার্চ মাসের ৯ তারিখে ব্যাটারিটি উন্মোচন করার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

শনিবার এক সাক্ষাৎকারে এই ঘোষণা দিয়েছেন এইওআই প্রধান সালেহি।সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘ইরানের পরমাণু বিজ্ঞানীরা পারমাণবিক ব্যাটারি তৈরি করেছেন। পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে এটা এখন পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে।’

পারমাণবিক ব্যাটারি বিদ্যুত উৎপাদনের জন্য তেজষ্ক্রিয় আইসোটপের ক্ষয় থেকে শক্তি বা জ্বালানি গ্রহণ করে। অন্যান্য ব্যাটারির তুলনায় এসব ব্যাটারি ব্যয়বহুল। তবে এসব ব্যাটারি অত্যন্ত দীর্ঘায়ুসম্পন্ন এবং এর উচ্চমাত্রার শক্তি ঘনত্ব রয়েছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে পারমাণবিক ব্যাটারি মহাকাশযান, পেসমেকারস ও ডুবো (আন্ডারওয়াটার) সিস্টেমের বৈদ্যুতিক উৎস হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ফ্রান্স ও ব্রিটেনের পর বিশ্বের পঞ্চম দেশ হিসেবে পারমাণবিক ব্যাটারি তৈরির প্রযুক্ত রপ্ত করলো ইরান।সালেহি বলেন, ‘আমরা আশা করছি ২০১৮ সালের ৯ মার্চ ব্যাটারিটি উন্মোচন করতে পারব।’

আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধান জানান, পরমাণু ব্যাটারির বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। বিশেষভাবে স্বাস্থ্য খাতে এটি বেশি ব্যবহার করা হয়। মানবদেহের অভ্যন্তরে এই ব্যাটারি স্থাপন করা যায় এবং এটি জীবনব্যাপী কার্যকর থাকতে পারে। কেননা, আণবিক ব্যাটারির ৫০ বছরের আয়ুষ্কাল রয়েছে।

সালেহি বলেন, ‘এই প্রকল্প ভালোভাবেই এগিয়ে চলেছে। আমরা আশা করছি এই ব্যাটারি স্বাস্থ্য খাতে নিযুক্ত করতে পারব। সেই সাথে নিকট ভবিষ্যতে মরুভূমির মতো যেসব প্রত্যন্ত জায়গায় বিদ্যুতের কোনো উপস্থিতি নেই সেখানে ব্যবহার করা যাবে।’

এর আগে চিকিৎসা ও শিল্প খাতে ব্যবহার উপযোগী এ পারমাণবিক ব্যাটারি তৈরির প্রযুক্তি অর্জনের কথা জানান ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার প্রধানের উপদেষ্টা আসকার জারেয়ান। গত সপ্তাহে তিনি জানান, বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে দেশীয় কোম্পানির সহযোগিতা শক্তিশালী করার মাধ্যমে এই প্রযুক্তির বাণিজ্যিকীকরণ করার পদক্ষেপ নেবে তেহরান। ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা বাস্তবায়নের মাধ্যমে পরমাণু কর্মসূচির ক্ষেত্রে ইরানের সামনে সম্ভাবনার নতুন অনেক দিগন্ত খুলে গেছে বলেও তিনি জানান।

সূত্র: মেহের নিউজ এজেন্সি।