বুধবার, ১৯শে জুন, ২০১৯ ইং, ৫ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

ফারসি ভাষা শিক্ষা কোর্সের সনদ বিতরণী অনুষ্ঠান

পোস্ট হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৯ 

news-image

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র পরিচালিত ৬৮তম ফারসি ভাষা শিক্ষা কোর্সের সনদ বিতরণী ও ৬৯তম ব্যাচের উদ্বোধন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবুল কালাম সরকার, বিভাগের ইরানি ভিজিটিং প্রফেসর ড. কাযেম কাহদুয়ী, ভাষা শিক্ষা কোর্সের শিক্ষক প্রফেসর ড. মুহসিন উদ্দীন মিয়া ও প্রফেসর ড. তারিক জিয়াউর রহমান সিরাজী। আরো উপস্থিত ছিলেন একই বিভাগের শিক্ষক মো. আহসানুল হাদী, মাহাদী হাসান। স্বাগত ভাষণ দেন ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কালচারাল কাউন্সেলর ড. মাহদী হোসেইনী ফায়েক।

ড. ফায়েক বলেন, যেসব শিক্ষার্থী ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র পরিচালিত ফারসি ভাষা শিক্ষা কোর্সে ভালো ফল অর্জন করেছে তাদেরকে উচ্চতর শিক্ষার জন্য ইরানে প্রেরণের ব্যাপারে ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র সহযোগিতা করার চেষ্টা করবে। বর্তমানে ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র যে সকল কোর্স পরিচালনা করছে সেখানে আরো অধিক অংশগ্রহণের জন্য তিনি শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান।

ড. তারিক বলেন, ভাষা শেখা জোর করে হয় না। ভাষাকে আত্মস্থ করার জন্য এর প্রতি ভালোবাসা থাকতে হবে। ফারসি ভাষা শেখাটা এজন্য প্রয়োজন যে, আমাদের দেশে অনেক আগে থেকেই ফারসির প্রচলন ও চর্চা ছিল। এমনকি ১২০৩ খ্রিস্টাব্দেও পারস্যের সাথে বাংলাদেশের একটি সম্পর্ক আমরা দেখতে পাই। তখন পারস্য থেকে প্রচুর সংখ্যক বণিক বাংলাদেশে আসতেন ব্যবসা উপলক্ষে, অন্যদিকে সুফি সাধকরা আসতেন ধর্ম প্রচারের লক্ষে। তাঁদের মাধ্যমেই ফারসি ভাষা বাংলার মানুষের মাঝে স্থান করে নেয়। বাংলা ভাষায় অনেক ফারসি শব্দ এমনভাবে মিশে গিয়েছে যে, বোঝা যায় না তা ফারসি থেকে এসেছে।
তিনি আরো বলেন, ভাষা শেখার জন্য মনোযোগ ও ধারাবাহিকতা প্রয়োজন। তা না হলে ভাষা শেখা সম্ভব হয় না। তিনি ফারসি ভাষাপ্রেমিকদের জন্য ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘আঞ্জুমানে ফারসি’ সংগঠনটিকে পুনরুজ্জীবিত করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

ড. কাযেম কাহদুয়ী বলেন, যেহেতু বাংলাদেশের সাথে পারস্যের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের এবং পারস্য থেকে লোকজন এখানে এসে বসতি স্থাপন করে সেহেতু সাহিত্য, ইতিহাস, ইরফান প্রভৃতি বিষয়ে ফারসি ভাষায় অনেক গ্রন্থ রচিত হয়, আবার ফারসিকে নিয়েও অনেক গ্রন্থ রচিত হয়। ফারসি অধ্যয়ন না করলে সেসব সম্পর্কে জানা যাবে না। বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ফারসি শেখানো হয়। আবার বর্তমান বিজ্ঞানের যুগে ইন্টারনেটে ফারসি ভাষা শেখার সুন্দর সুযোগ রয়েছে।

ড. কালাম সরকার বলেন, ফারসি ভাষা শিক্ষা বিস্তারের ক্ষেত্রে ইরানের যে প্রচেষ্টা ও আর্থিক সহযোগিতা তা অন্য কোন দেশের ভাষা বিস্তারের ক্ষেত্রে বিরল।
৬৮তম ব্যাচের বিভিন্ন কোর্সে উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে কয়েকজন ফারসি ভাষা শিক্ষার বিষয়ে তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করে।
অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে উত্তীর্ণ সকল ছাত্রের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ করা হয় এবং ভালো ফল অর্জনকারীদেরকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এছাড়া গত ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বাংলাদেশ শিল্পকলা একামেীর উদ্যোগে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের প্রতিনিধিত্বকারী ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝেও সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।