সোমবার, ২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং, ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

পরিষ্কার আকাশ নিশ্চিতে ইরানে মাসব্যাপী কর্মসূচি

পোস্ট হয়েছে: জানুয়ারি ৭, ২০১৯ 

news-image

নির্মল ও পরিবেশবান্ধব যাতায়াত নিশ্চিতে ইরানে চলছে ‘পরিবহন সপ্তাহ’ (ট্রান্সপোর্ট উইক)। গেল ১৭ ডিসেম্বর শুরু হয়ে এটি চলবে ১৯ জানুয়ারি ‘ক্লিন এয়ার ডে’ পর্যন্ত। এ উপলক্ষে দেশটির ইসফাহান শহরে শুরু হয়েছে সাংস্কৃতিক, নগর-কেন্দ্রিক, শিক্ষাগত, বিনোদনমূলক নানা কার্যক্রমসহ বিভিন্ন ইভেন্ট।

এদিকে, ইসফাহান পৌরসভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, পরিষ্কার বাতাশ নিশ্চিতে উল্লিখিত কার্যক্রমের পাশাপাশি একই সাথে চলছে ‘অদাম অ্যান্ড এয়ার’ শীর্ষক মাসব্যাপী ইভেন্ট। আকাশ পরিষ্কার রাখার দাবিতে জনগণকে সম্পৃক্ত করে শুরু হওয়া এই ক্যাম্পেইন এরই মধ্যে ইসফাহানে বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

এছাড়া শহরজুড়েও চলছে নানা সাংস্কৃতিক উৎসব। জনসাধারণকে যানবাহন চলাচলের নিয়মকানুন সম্পর্কে অবগত করতে এসব অনুষ্ঠানে শৈল্পিক উপস্থাপনাকে সধারাণ ভাষা হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। উৎসবে উপস্থাপনার জন্য বিভিন্ন ধরনের শিল্পীরা ট্রাফিক ও বায়ু দূষণ সম্পর্কে কবিতা, ফটো, কার্টুন ইত্যাদি শিল্পকর্ম দাখিল করতে পারবেন।

ইসফাহানের নগর পরিবহন বহরে যুক্ত হয়েছে ৩০টি উদ্ভাবনী বাস। এসব বাসে অক্ষম মানুষদের জন্য থাকছে স্বাচ্ছন্দে যাতায়াতের সুযোগ-সুবিধা।

মাসব্যাপী ওই ইভেন্টের আওতায় ‘এয়ার পলুশন ওয়াচ’ শীর্ষক আরেকটি প্রকল্পও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকল্পটির লক্ষ্য উচ্চমাত্রায় কার্বন নি:সরণকারী যানবাহনের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো। প্রকল্পটির আওতায় নাগরিকরা উচ্চমাত্রায় কার্বন নির্গমন করে এমন পরিবহন সম্পর্কে হটলাইন ১৩৭ এ ফোন দিয়ে অথবা বিশেষ একটি মোবাইল অ্যাপের সাহায্যে কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ জানাতে পারবেন।

অভিযোগ পাওয়ার পর দূষণ সৃষ্টিকারী গাড়ি যানবাহন পরীক্ষা কেন্দ্রে হস্তান্তর করা হবে। এই প্রকল্পে প্রত্যেক নাগরিক একজন বায়ু দূষণ পর্যবেক্ষক হিসেবে পরিগণিত হবেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

ইসফাহানের মেয়র কুদরতুল্লাহ নৌরুজি জানিয়েছেন, এ ক্ষেত্রে আমাদের যেসব পলিসি রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হলো- কিছু রাস্তাঘাট ও ইসফাহানের পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোতে সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনা করা। যাতে করে নগরের পরিবারগুলো নিরাপদ পরিবেশে একত্রে সময় কাটাতে পারে। এসব প্রকল্পের ফলে আকাশ পরিষ্কার হচ্ছে, যানজট কমছে এবং রাস্তাঘাট নিরাপদ হচ্ছে বলে জানান তিনি।

অপরদিকে, ইসফাহান শহরে চালু করা হয়েছে ১৫টি বাই সাইকেল স্টেশন, যেখানে নাগরিকদের আসতে বলা হচ্ছে এবং বাই সাইকেল, ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল, স্কুটারস ইত্যাদি ব্যবহারের প্রতি উৎসাহিত করা হচ্ছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে এই বাইক স্টেশনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে পঞ্চাশে পৌঁছবে বলে জানান ইসফাহান পৌরসভার পরিবহন বিষয়ক ডেপুটি মেয়র আলিরেজা সালাভাতি। সূত্র: তেহরান টাইমস।