মঙ্গলবার, ১২ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

চীনে ইরান ও বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রীর সাক্ষাৎ

পোস্ট হয়েছে: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১৬ 

news-image
ইরানের সংস্কৃতি ও ইসলামি নির্দেশনা বিষয়ক মন্ত্রী আলী জান্নাতি চীনে বাংলাদেশের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুরের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। চীনের ডন হুয়াং সিল্করোড এক্সপো অনুষ্ঠানের ফাঁকে তারা এ বৈঠকে মিলিত হন। বৈঠকে দুদেশের সাংস্কৃতিক বিনিময় সম্প্রসারণের ব্যাপারে মতৈক্য হয়েছে। ইরানের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আলী জান্নাতি এ সাক্ষাতে বলেনইরানআর্মানিস্তান,ওমান ও বর্তমানে চীনের এ বৈঠক নিয়ে এপর্যন্ত বাংলাদেশের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রীর সাথে আমার চারটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হল। আমি আশাকরছি দুই মুসলিম দেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের সম্পর্ককে আরো জোরদার করবে।
তিনি বলেনবাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই এই দেশটির সাথে উন্নত সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। এমনকি দেশটির রাজধানী ঢাকায় আমাদের খুবই সক্রিয় একটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র রয়েছে। যা বাংলাদেশের বিভিন্ন শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের সাথে সুসম্পর্ক রেখে কাজ করে যাচ্ছে। ইরানের সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেনইরানের জনগণ বাংলাদেশের সংস্কৃতির সাথে পরিচিত হবে এমন যেকোন পদক্ষেপকে আমরা স্বাগত জানাই এবং তেহরানে যাতে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠিত হয় এবং  দেশটিতে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক সপ্তাহ পালিত হয় সে ব্যাপারে আমরা প্রস্তুত রয়েছি। এমনকি বাংলাদেশের শিল্প ও সাংস্কৃতিক প্রতিনিধি দলের ইরান সফরকেও আমরা স্বাগত জানাই।
আলী জান্নাতি বাংলাদেশে ১৯৯২ সালে ইরানের মহাকবি ফেরদৌসির শাহনামা বাংলায় অনুবাদের কথা উল্লেখ করে বলেনআমরা আশাকরছি বাংলাদেশের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় বইটি পুনর্মুদ্রিত হবে।
বৈঠকে বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর বলেন২০১৫ সালে ইরান ও বাংলাদেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক সহযোগিতা বিষয়ক দলিল সাক্ষরিত হলেও এখনও পর্যন্ত এ ব্যাপারে আশানুরুপ অগ্রগতি হয় নি।  উভয়দেশের উচিত এ পরিস্থিতির উন্নয়নে আরো বেশি মনোযোগি হওয়া। তিনি বলেনচলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশে এশিয়ান শিল্প বিষয়ক দ্বিবার্ষিক উৎসব হওয়ার কথা রয়েছে। এই উৎসবে ইরানি প্রতিনিধিদলকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাতে তার দেশ প্রস্তুত রয়েছে। তিনি ইরানি চলচ্চিত্র উৎসবকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও পেশাদারসূলভ উল্লেখ করে পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে এই ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজনের ব্যাপারে তার অগ্রহের কথা জানান। ইরানের মন্ত্রী আলী জান্নাতি তার এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে বলেনবাংলাদেশ এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিকভাবে আবেদন জানালে আমরা বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে দেখবো এবং এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের চেষ্টা করবো। বৈঠকে উভয়পক্ষ বই দুদেশের বই মেলা নিয়েও কথা বলেন। বাংলাদেশের সংস্কৃতি মন্ত্রী ইরানের বইমেলায় সক্রিয় অংশগ্রহণের ব্যাপারে তার দেশের প্রস্তুতির কথা ঘোষণা করেন। এসময় ইরানের সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেনআগামী বছর ইরানের আন্তর্জাতিক বই মেলায় তার দেশ বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানাবে। এসময় বাংলাদেশের সংস্কৃতিমন্ত্রী ইরানের সংস্কৃতি ও ইসলামী নির্দেশনা বিষয়ক মন্ত্রীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।