শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

‘ইরান-বাংলাদেশের মধ্যে সেতুবন্ধন হবে নাটকের’

পোস্ট হয়েছে: মে ১৪, ২০১৮ 

news-image

বাংলাদেশের নাট্য-ব্যক্তিত্ব সুদীপ চক্রবর্তী আজ(রোববার) রেডিও তেহরানকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ইরান বাংলাদেশের মধ্যে সেতুবন্ধন হবে নাটকের। এ ছাড়া সাক্ষাৎকারের সূচনাই তিনি বলেন, প্রথমবারের মতো তেহরানে আসলাম; আমি বিমুগ্ধ! ২১তম ইরান আন্তর্জাতিক নাট্যমেলায় অংশ নেয়ার জন্য সরাসরি লন্ডন থেকে তেহরানে আসেন তিনি।

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের ছাত্র-ছাত্রী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্সি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুমিত আর রশিদ(ডান থেকে দ্বিতীয়)’এর সঙ্গে সুদীপ চক্রবর্তী

ব্রিটেনের গোল্ডস্মিথ বিশ্ববিদ্যালয়ে কমনওয়েলথ স্কলারশিপের আওতায় পিএইচডি করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুদীপ চক্রবর্তী। নাট্যকলা বিষয়ে ভাষণ দেয়ার জন্য আমন্ত্রিত হয়ে তেহরানে আসেন তিনি। তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন আর্টস বিভাগের সামিনে মোফাকখাম হলে নাট্য কলা বিষয়ক ভাষণ দেন তিনি।

ভাষণ শেষে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, প্রথমবারের মতো তেহরানে আসলাম; আমি বিমুগ্ধ। ইরান সম্পর্কে দূর থেকে যে কথা বলা হয় এখানে এসে তা থেকে ভিন্ন এক ইরানের দেখা পান বলেও জানান তিনি। এ ভিন্নতার স্বরূপ তুলে ধরতে যেয়ে বাংলাদেশের বরেণ্য এই নাট্য-ব্যক্তিত্ব বলেন, আমার কাছে যে ভিন্ন ইরান মনে হয় তা ইরানের সংস্কৃতি এবং সংস্কৃতির আভিজাত্যে ভিন্নতার কারণে মনে হয়েছে। পাশাপাশি ইরানকে তার আপন দেশ বলেই মনে হয়েছে। তিনি বলেন, যদিও ইরানের মানুষের রং ভিন্ন, উচ্চতা ভিন্ন এবং ভাষাও ভিন্ন। তারপরও ইরানিদের দেখে অনেকটাই আপনজন বলে মনে হয়েছে। চিনি ওদেরকে অনেক দিন ধরে। ইরান ও বাংলাদেশের মধ্যে দীর্ঘদিনের অভিন্ন সাংস্কৃতিক ঐক্যের কারণেই এমনটি মনে হয়েছে কিনা জানতে চাওয় হলে তিনি বলেন, একেবারে ঠিক কথাই বলা হয়েছে। সাংস্কৃতিক ঐক্যের গভীরতা এবং দু’দেশের মধ্যে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের ইতিহাস থাকায় হয়ত তার ভেতরের মানুষটাকে ইরান এ ভাবে উজ্জীবিত করেছে। নাট্যকলার ক্ষেত্রে ইরান বাংলাদেশ অপরূপ সমন্বয় হওয়া সম্ভব বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ বিষয়ে ইরানের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তার আলাপ হয়েছে। দু’দেশের নাট্য-বিশেষজ্ঞদের আদান-প্রদানের বিষয়ের পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তবেই দু’দেশের মধ্যে সেতুবন্ধন হবে নাটকের ।

তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে এবারের নাট্যমেলায় বাইরের ৮ দেশ অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে বাংলাদেশসহ তিন দেশ থেকে কোনো নাট্যদল আসেনি। কিন্তু সে সব দেশের নাট্য-বিশেষজ্ঞরা এ মেলায় ভাষণ দেবেন।- পার্সটুডে ।