মঙ্গলবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০১৯ ইং, ৯ই মাঘ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

English

ইরানের সাংস্কৃতিক নীতির লক্ষ্য, মূলনীতি ও ভিত্তি

পোস্ট হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৩ 

news-image

ইরানে সাংস্কৃতিক বিপ্লবের দায়িত্বে নিয়োজিত সুপ্রীম কাউন্সিল দ্ইু বছর ধরে আলাপ-আলোচনার পর ইরানের সাংস্কৃতিক নীতি প্রণয়ন ও সংকলন করেছে। সুপ্রীম কাউন্সিল এই বিধিমালাকে লক্ষ্য’, ‘ভিত্তিমূলনীতিএই তিনটি ভাগে বিভক্ত করে অনুমোদন করেছে। এই সাংস্কৃতিক নীতি প্রকাশ করার উদ্দেশ্যে সুপ্রীম কাউন্সিল একটি বিবৃতি প্রচার করে। নিচে তার সংক্ষিপ্তসার তুলে ধরা হলো :

বিবৃতিতে ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের রাহবার আয়াতুল্লাহ সাইয়্যেদ আলী খামেনেয়ীর একটি মন্তব্য উল্লেখ করা হয়। ১৯৯১ সালে সুপ্রীম কাউন্সিলের সদস্যদের সাথে এক বৈঠকে রাহবার খামেনেয়ী দেশের লোক সংস্কৃতির উন্নয়ন ও বিকাশের উপর গুরত্ব আরোপ করে বলেন, দেশের জন্যে একটি সাংস্কৃতিক নীতি প্রণয়ন ও অনুমোদন অত্যন্ত জরুরি।

সুপ্রীম কাউন্সিল অনুমোদিত নীতিমালা নিম্নোক্তভাবে বিভক্ত :

লক্ষ্য

ইসলামী প্রজাতন্ত্র যে সাধারণ সাংস্কৃতিক লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে এবং এ ধরনের বিধিমালা প্রণয়নের পশ্চাতে যে দৃষ্টিভঙ্গি কাজ করেছে তা হচ্ছে :

ক. ইসলামী প্রজাতন্ত্রের সাংস্কৃতিক লক্ষ্য

১.         সমগ্র দেশ তথা বিশ্বব্যাপী মানবীয় ও ইসলামী সংস্কৃতির প্রচার এবং ইসলামী বিপ্লবের বাণী ও সংস্কৃতি ছড়িয়ে দেয়া।

২.         সাংস্কৃতিক স্বাধীনতা অর্জন, অবক্ষয়ের চিহ্নসমূহ ও বিদেশী সংস্কৃতির ভিত্তিকে নির্মূল করা এবং বিচ্যুত রীতিনীতি ও কুসংস্কার থেকে সমাজকে মুক্ত করা।

৩.         জীবনের সকল ক্ষেত্রে মানুষের উদ্ভাবনী শক্তিকে পরিশুদ্ধ করা এবং আল্লাহ তাআলা মানুষকে যে প্রতিভা ও জ্ঞান দান করেছেন তাকে কাজে লাগানো।

৪.         পরিশুদ্ধি ও পবিত্রতা অর্জনের জন্য মানুষকে নৈতিক শক্তি ও খোদায়ী ঈমানে ভূষিত করা।

৫.         প্রতিটি ব্যক্তি বিশেষ তথা সাধারণ জীবনে ইসলাম ও ইসলামী বিপ্লবের মূল্যবোধ বজায় রাখা এবং সেগুলোকে রক্ষার জন্য পরিপূর্ণভাবে সাংস্কৃতিক বিপ্লব সাধন এবং একটি পরিশুদ্ধ ও খাঁটি জীবনে সমাজ উপনীত না হওয়া পর্যন্ত সাংস্কৃতিক আন্দোলন অব্যাহত রাখা।

৬.         সময়ের চাহিদা পূরণ ও অগ্রগতিকে এগিয়ে নেয়া, অন্যান্য মানব সমাজের সাংস্কৃতিক সাফল্যকে বিশ্লেষণ ও সংশোধন করা এবং সেগুলো থেকে ইসলামী মূল্যবোধ ও মৌলনীতির সাথে সামঞ্জস্যশীল দিকগুলোকে কাজে লাগানো।

 খ. সাংস্কৃতিক নীতির লক্ষ্য

১.         আদর্শগত বিশ্বাস ও মূল্যবোধ এবং দেশের অভ্যন্তর ও বিশ্বজগৎ থেকে আহরিত অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে দেশের সাংস্কৃতিক আন্দোলন পরিচালনার জন্য প্রধান প্রধান নীতি-নির্দেশনা ও অগ্রাধিকার নির্ধারণ ও তা সংকলন করা।

২.         বিভিন্ন সরকারী সংস্থাকে তাদের সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের মধ্যে সমন্বয় সাধন করতে বলা এবং সমাজের সাংস্কৃতিক চাহিদা পূরণের জন্য বিদ্যমান সকল সামর্থ্যকে সংগঠিত করা ও কাজে লাগানো।

৩.         আধ্যাত্মিক চেতনা ও ইসলামী মূল্যবোধের উপর গুরুত্ব প্রদান, সময়ের চাহিদা মোতাবেক জাতীয় সংস্কৃতির প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন, সংহত ও শক্তিশালীকরণ এবং দুর্বলতা দূরীকরণ ইত্যাদির মাধ্যমে অগ্রগতির জন্য একটি পূর্ণ মাত্রার প্রস্তুতি গ্রহণ।

৪.         দেশের সাংস্কৃতিক নীতির সাথে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও অন্যান্য পরিকল্পনাকে সামঞ্জস্যপূর্ণ করার পদক্ষেপ গ্রহণ।

৫.         সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের তত্ত্বাবধান ও পর্যবেক্ষণের জন্য সাংস্কৃতিক পরিকল্পনা গ্রহণ, জনসাধারণের সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে স্বাধীনতা ও সহায়তা দান, সরকারী-বেসরকারী খাতের মধ্যে সাংস্কৃতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা, জনসাধারণের মধ্যে জ্ঞানের বিস্তার ও সচেতনতা সৃষ্টির জন্য একটি সাংস্কৃতিক জিহাদ পরিচালনা এবং জনসাধারণকে গবেষণা ও উদ্ভাবনের দিকে উদ্বুদ্ধ করে তোলা।

 ভিত্তি

ইসলামী প্রজাতন্ত্রের সাংস্কৃতিক নীতি বিশ্বজনীনতা ও মানব জীবনের সাথে সংশ্লিষ্ট ইসলামী আদর্শ থেকে উৎসারিত এবং সংবিধান সাংস্কৃতিক নীতির ভিত্তিতে প্রণীত। সাংস্কৃতিক নীতির ভিত্তিসমূহ হলো :

১.         ব্যক্তি ও সামাজিক জীবনের সকল ক্ষেত্রে একত্ববাদ আদর্শের প্রাধান্য এবং ওহী, নবুওয়াত, ইমামত, ন্যায়বিচার ও আখেরাতের উপর চূড়ান্ত বিশ্বাস।

২.         আত্মার অবিনাশিতা এবং আল্লাহর প্রতিনিধি হিসাবে মানুষের সম্মান ও মর্যাদা এবং পরিশুদ্ধির পথে মানুষের সহায়তার জন্য জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার চর্চা।

৩.         মানব জীবনের বিকাশ ও সাফল্যের জন্য খোদায়ী প্রকৃতিকে লালন।

৪.         সৃষ্টির বিবেচনায় সকল মানুষের মধ্যে সমতা, ইসলামের সর্বজনীনতার বাণী মোতাবেক ধর্ম ও বর্ণের মধ্যে কোনরকম পার্থক্য না করা এবং ইসলামের আহ্বান অনুসারে মানবীয় কার্যক্রমের মাধ্যমে সাধারণ্যে সহযোগিতার বিস্তার।

৫.         মানুষের আধ্যাত্মিক ও বস্তুগত প্রকৃতি এবং তার জীবনের ব্যক্তিগত, সামাজিক, বৈষয়িক, আধ্যাত্মিক, দৈহিক, মানবিক ও আবেগ অনুভূতির বিকাশ ও উন্নতি।

৬.         কল্যাণকামিতা ও আদর্শবাদিতার প্রতি মানুষের অনুরাগ বা আগ্রহ, লক্ষ্যের প্রতি নিষ্ঠা এবং জ্ঞান, পরিশুদ্ধি ও নৈতিকতার প্রতি গুরুত্ব প্রদান।

৭.         আধ্যাত্মিক মূল্যবোধ ও নৈতিক শক্তি সৃষ্টি; মানুষের মধ্যে মুক্তি, স্বাধীনতা ও মর্যাদাবোধ জাগ্রত করা এবং সমাজ ও মানুষের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য ঈমানী বলে বলীয়ান করা।

৮.         ন্যায়বিচার, জিহাদ ও বাস্তবভিত্তিক একটি একত্ববাদী সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য মানুষের জানার সামর্থ্য এবং প্রতিভা ও উদ্ভাবনী মানসিকতাকে কাজে লাগানো। বৈজ্ঞানিক গবেষণা পরিচালনা ও ঐতিহাসিক অভিজ্ঞতাও হবে সাংস্কৃতিক চর্চার ভিত্তি।

৯.         মানুষের মর্যাদা ও মূল্যবোধ প্রতিষ্ঠার জন্য ইসলামী সমাজে যথার্থ আধ্যাত্মিক শক্তি ও নৈতিক মূল্যবোধ জাগ্রত করার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা।

১০.       নিজের সামাজিক পরিবেশের প্রতি মানুষের নেতিবাচক ও ইতিবাচক দায়িত্বের আলোকে পরিবেশকে সুষ্ঠু ও ন্যায়বিচারভিত্তিক করা, জনসাধারণকে সকল ব্যাপারে একটি দিক-নির্দেশনায় পরিচালনা করা এবং অবমাননা, মুনাফেকী, দুর্নীতি, অত্যাচার-নির্যাতন, প্রভুত্ব ও দাম্ভিকতার মূলোৎপাটন করা।

 মূলনীতি

সাংস্কৃতিক বিপ্লবের দায়িত্বে নিয়োজিত সুপ্রীম কাউন্সিল ইরানের সাংস্কৃতিক নীতির যেসব মূলনীতির প্রণয়ন ও অনুমোদন করে তা নিচে উল্লেখ করা হলো :

১.         ইসলামী ও জাতীয় ঐতিহ্য রক্ষা এবং ইরানী ও ইসলামী সভ্যতার পুনরুজ্জীবন ও সংরক্ষণের লক্ষ্যে বিভিন্ন ধর্মীয়, বৈজ্ঞানিক সাহিত্য, লোক-সাহিত্য ও চিত্রকলার ক্ষেত্রে জাতীয় ও ঐতিহাসিক ঐতিহ্য ও উত্তরাধিকারের প্রতি স্বীকৃতি ও মূল্যায়ন।

২.         ইসলামের সংস্কৃতি ও সভ্যতার উপর ব্যাপক জ্ঞান অর্জন, ইসলামী নৈতিকতা ও শিক্ষার বিকাশ এবং ইসলামী ও ইরানী ইতিহাসের মহান ব্যক্তিত্ববর্গের পরিচিতি উপস্থাপন।

৩.         দেশ ও জাতিসমূহের সাথে গতিশীল সম্পর্ক এবং বিশ্বের মুসলমান ও অন্যান্য জাতির সাথে সম্পর্ক জোরদার করা।

৪.         মানবীয় সংস্কৃতি ও অভিজ্ঞতা সম্পর্কে ধারণা অর্জন এবং যথাযথ ও সকল উপায় অবলম্বনে আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক ও সাংস্কৃতিক সাফল্য কাজে লাগানো।

৫.         ধর্মীয় মতপার্থক্য ও জাতিগত বিরোধের প্রেক্ষাপটকে সামনে রেখে জাতীয় ও ধর্মীয় সংহতি সৃষ্টি এবং ঐক্যের পথে সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করা।

৬.         সমাজের বৈজ্ঞানিক, সাংস্কৃতিক ও কারিগরি মানকে উন্নত করতে এবং শিক্ষা ও সাক্ষরতা বিস্তারে নিরলস প্রচেষ্টা চালানো।

৭.         ফারসি ভাষা ও সাহিত্যের উন্নয়ন ও বিকাশে আরো দৃষ্টি দান।

৮.         নবতর আবিষ্কার-উদ্ভাবনে সমর্থন ও সহায়তার জন্য বুদ্ধিবৃত্তিক ও উদ্ভাবন উপযোগী ক্ষেত্র তৈরি করা।

৯.         মানুষের সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক, বিচার সংক্রান্ত ও অর্থনৈতিক জীবনের সকল ক্ষেত্রে স্বাধীনতা ও নিরাপত্তা বিধান করা।

১০.       অধ্যয়ন ও গবেষণার জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা এবং বিভিন্ন উদ্দেশ্যে এর ফলাফলকে কাজে লাগানো।

১১.        পরস্পর বিরোধী আদর্শসমূহের মধ্য থেকে একটিকে বাছাইয়ের জন্য মানুষের চিন্তা ও বিশ্লেষণ শক্তিকে জোরদার করা।

১২.       কুসংস্কার, প্রতিক্রিয়াশীল ধারণা, গোঁড়ামি, বহু দর্শনে বিশ্বাসের প্রবণতা ও বিদেশীদের প্রতি আনুগত্যের বিরুদ্ধে সংগ্রাম।

১৩.       সামাজিক ন্যায়বিচারের জন্য সংগ্রামের চেতনা বিস্তার।

১৪.        মিতব্যয়িতার নীতি অনুসরণ এবং অপব্যয় ও অপচয়ের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে স্বাধীনতা ও স্বনির্ভরতা অর্জনের প্রচেষ্টার উপর গুরুত্ব আরোপ।

১৫.       খেলাধুলার উপর সার্বিক গুরুত্ব প্রদানের জন্য শারীরিক ও মানসিক প্রশিক্ষণ দান এবং গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক আবশ্যকতা হিসাবে শরীরচর্চার ব্যবস্থা করা।

১৬.       সকল ক্ষেত্রে ইসলামী শিক্ষা ও চেতনার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ যথার্থ ও গঠনমূলক চিত্রকলার উন্নয়ন, পুনরুজ্জীবন ও প্রবর্তন।

১৭.        যুব সমাজকে রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিল্পকর্ম ইত্যাদি কাজে আরো সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করার জন্য তাদের ভূমিকা ও সামাজিক মর্যাদাকে স্বীকৃতি দান এবং তাদের অবস্থা পর্যালোচনা করা।

১৮.       মহিলাদের অধিকার ও মর্যাদা সম্পর্কে গবেষণা-পর্যালোচনা করা এবং তাদের ইসলামী চরিত্রকে জোরদার করা। সেই সাথে ভুল রীতিনীতি ও বিশ্বাসের বিরুদ্ধে সংগ্রাম এবং মহিলাদেরকে সামাজিক, সাংস্কৃতিক, চিত্রকলা ও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় অংশগ্রহণের সুযোগ সৃষ্টি করা।

১৯.       সরকারী তদারকীর অধীনে সাংস্কৃতিক কার্যক্রম বিস্তার ও উন্নয়নের লক্ষ্যে সংস্কৃতি, চিত্রকলা, বিজ্ঞান ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে জনসাধারণের অংশগ্রহণ ও মতামত গ্রহণের ক্ষেত্র তৈরি এবং সেই সাথে সকল বেসরকারী তৎপরতা ও কার্যব্যবস্থাকে সহায়তা দেয়া।

২০.       সংস্কৃতি, চিত্রকলা ও সামাজিক বিষয়াদির জন্য ইতিবাচক নীতি গ্রহণ এবং ব্যক্তি তথা সমগ্র সমাজের জন্য সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি এবং মিতাচারিতা, কল্যাণকামিতা, একাগ্রতা, শিষ্টাচার ও সৎ চিন্তাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উদ্যোগ গ্রহণ এবং বিশৃঙ্খলা, অস্থিরতা, গোঁড়ামি ও অহংকার পরিহার করে চলা।

২১.       সামাজিক চেতনা তথা ব্যক্তিস্বার্থের উপরে সামষ্টিক স্বার্থকে স্থান দেয়ার মানসিকতা জোরদার করার উদ্দেশ্যে প্রশিক্ষণ ও উৎসাহ দান : আইন-শৃঙ্খলার প্রতি শ্রদ্ধাকে একটি সামাজিক ঐতিহ্য হিসাবে গড়ে তোলা এবং আইন-শৃঙ্খলা ও গণ-অধিকার রক্ষায় সরকারের উদ্যোগ গ্রহণ।

২২.       যথার্থ জাতীয় ও ধর্মীয় পরিচয় জানা ও বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা চালানো, সেগুলো সংরক্ষণ এবং সাংস্কৃতিক স্বাধীনতা নিশ্চিত করা।

২৩.       গঠনমূলক সমালোচনার চেতনা বিস্তার, ব্যক্তি ও সামাজিক অধিকারের সমর্থনে সমালোচনার সুযোগ দান, আইনানুগ কাজের পরিবেশকে ব্যাপকতর করা এবং প্রচারে ও পরামর্শের মাধ্যমে পাপ কাজ থেকে বিরত রাখা।

২৪.       নৈতিক গুণাবলির অগ্রগতি ও সংহতকরণে সাংস্কৃতিক প্রচার জোরদার করা।

 (নিউজলেটার, ফেব্রুয়ারি ১৯৯২)