শুক্রবার, ২০শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং, ৫ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

English

ইরানের পর্যটন শিল্প রমরমা

পোস্ট হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭ 

news-image

আমেরিকার একটি প্রভাবশালী গণমাধ্যম বলছে, পশ্চিমা পর্যটন সংস্থাগুলো  যখন এই আশঙ্কায় করছে যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পারমাণিবক চুক্তি বানচাল করে দিতে পারেন। ঠিক সে সময় আকস্মিকভাবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াচ্ছে ইরানের পর্যটন শিল্প। সরকারি তথ্যমতে, গত ইরানি বছরের শেষ নাগাদ ৬০ লক্ষাধিক পর্যটক ইরান ভ্রমণ করেছেন। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় গত বছর পর্যটক বেড়েছে অর্ধেক এবং ২০০৯ সালের তুলনায় বেড়েছে তিন গুণ।

সিএনএন এর প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৫ সালে তেহরান ও বিশ্ব শক্তিগুলোর মধ্যে পারমাণবিক চুক্তি সম্পাদনের প্রেক্ষিতে পরের বছর ইরানের ওপর থেকে অধিকাংশ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়। ফলে দেশটিতে আকস্মিকভাবে পর্যটক প্রবাহ ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়।

অবরোধ প্রত্যাহারের পর ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ ও লুফথানসা (ডিএলএকেওয়াই) এর মতো ইউরোপীয় এয়ারলাইন্সগুলি ইরানে পুনরায় সরাসরি ফ্লাইট চালু করে। অন্যদিকে, ইরানি কর্তপক্ষও ভিসা পদ্ধতিতে শিথিলতা নিয়ে আসেন। ফলে ব্যাপক পর্যটক আসতে শুরু করে দেশটিতে। বর্তমানে পর্যটকদের জন্য আবাসিক হোটেলের চাহিদা আকাশ ছুঁয়েছে।

অপরদিকে, ইরানের পর্যটন শিল্পের চাঙ্গাভাব স্থানীয় উদ্যোক্তা ও বিদেশি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছে।

যদিও পশ্চিমা কিছু ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প পারমাণবিক চুক্তি বানচাল করে দিতে পারেন- এই আশঙ্কায় ইরানে বিনিয়োগে অনাগ্রহী। তবে আন্তর্জাতিক হোটেল ব্যবসায়ীরা পর্যটকদের অধিক পরিমাণের কক্ষের চাহিদা পূরণে দ্রুত এগিয়ে আসছে।

ফ্রান্সের হোটেল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অ্যাকোর (এসিসিওয়াইওয়াই) প্রথম ২০১৫ সালে ইরানে তাদের শাখা চালু করে। বর্তমানে কোম্পানিটি সেখানে দুটি হোটেল পরিচালনা করছে।

স্পেনের মেলিয়া (এসএমআইজেডএফ) আগামী বছর ইরানে তাদের প্রথম হোটেল চালু করবে। এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাতের রোটানা’র আগামী বছরের শুরুতে একটি হোটেল এবং ২০২০ সালের মধ্যে আরও তিনটি হোটেল চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে ।

ইরানের রাষ্ট্রীয় পর্যটন সংস্থার তথ্যমতে, ২০২৫ সাল নাগাদ দেশটির ২ কোটি পর্যটক গ্রহণের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। সূত্র: মেহের নিউজ।