মঙ্গলবার, ১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং, ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

English

ইরানি চলচ্চিত্র বিশ্ব সিনেমায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে: ইকবাল সোবহান চৌধুরী

পোস্ট হয়েছে: নভেম্বর ৩, ২০১৮ 

news-image

ইরানি চলচ্চিত্র বিশ্ব সিনেমায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর মিডিয়া বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব ইকবাল সোবহান চৌধুরী। শনিবার বিকেলে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ৪ দিনব্যাপী ইরানি চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর মিডিয়া বিষয়ক উপদেষ্টা বলেন, ধর্মীয় চেতনা, মানবিক মূল্যবোধ এবং ইরানের ইতিহাস ঐতিহ্য ও সাংস্কৃতিক চেতনাকে ধারন করে ইরানের চলচ্চিত্র এগিয়ে চলেছে। তাদের চলচ্চিত্র অস্কার, কান থেকে শুরু করে নানাবিধ আন্তর্জাতিক পুরস্কারে ভূষিত হচ্ছে। ইরানি চলচ্চিত্র থেকে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্পের অনেক কিছু শেখার আছে।

অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ ইরান দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স জনাব এবরাহীম শাফেয়ী রেযভানী নেযাদ বলেন, চলচ্চিত্রের প্রতি মানুষের আকাক্সক্ষা অনেক উচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান এই আকাক্সক্ষা পূরণে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ কারণে অস্কার, কান থেকে শুরু করে নানা আন্তর্জাকি পুরস্কার লাভ করে চলেছে ইরান। তিনি বলেন, কেবল পুরুষেরা নয়, ইরানের নারী চলচ্চিত্র নির্মাতারাও খ্যতনামা সব সিনেমা নির্মাণ করে চলেছে।

অনুষ্ঠানে ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কালচারাল কাউন্সেলর ড. সাইয়্যেদ মাহদী হোসেইনী ফায়েক বলেন, নির্মাণ কৌশল, অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার ও গুণগত মানের দিক থেকে ইরানের চলচ্চিত্র শিল্প চোখধাঁধানো পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছে। দেশটির শিক্ষা, সংস্কৃতি ও সামাজিক উন্নয়নের একই সাথে উন্নয়ন হয়েছে দেশটির চলচ্চিত্র শিল্পের। বর্তমানে বিশ্ব চলচ্চিত্র অঙ্গনে ইরানি চলচ্চিত্রের বিশেষ পরিচিতি রয়েছে। মানবতা, ন্যায়বিচার, স্বাধীনতা এবং মানুষের প্রকৃতির বিশুদ্ধতার বার্তা সরবরাহের কারণেই ইরানি চলচ্চিত্র আজ বিভিন্ন দেশ, জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র সকলের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে।


অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশে শিল্পকলা একাডেমির নাট্য ও চলচ্চিত্র বিজ্ঞান বিভাগের পরিচালক জনাব মো. বদরুল আনাম ভূঁইয়া ও জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও নাট্য পরিচালক লাকি এনাম ।


উদ্বোধনী চলচ্চিত্র হিসাবে দেখানো হয় ইংরেজি সাব-টাইটেলযুক্ত চলচ্চিত্র ‘সো ফার, সো ক্লোজ’। ঢাকায় এই প্রদর্শনী চলবে ৬ই নভেম্বর পর্যন্ত। এদিকে, আগামী ৯ থেকে ১৩ নভেম্বর, ২০১৮ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর রাজশাহী, চট্টগ্রাম ও খুলনা বিভাগীয় মিলনায়তনে ইরানি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।