বুধবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং, ৮ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

‘আহলে বাইত’ এর পরিচয়

পোস্ট হয়েছে: সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৬ 

news-image

সাধারণভাবে আহলে বাইত বলতে নবীবংশের সদস্যদের বুঝায়। অর্থাৎ মহানবী (সা.)-এর কন্যা হযরত ফাতিমা যাহরা (আ.) ও তাঁর পরিবারবর্গ। কেউ কেউ ‘আহলে বাইত’ বলতে মহানবী (সা.)-এর গোটা পরিবারবর্গকে বুঝিয়ে থাকেন। তবে কুরআনুল করিমের আয়াত এবং কয়েকটি সহীহ হাদীস অনুসারে হযরত ফাতিমা যাহরা (আ.), হযরত আলী মুরতাজা (আ.) এবং তাঁদের দুই পুত্র হযরত হাসান (আ.) ও হযরত হোসাইন (আ.) এই চারজনকে মহানবীর আহলে বাইত হিসাবে গণ্য করা হয়।

আল্লাহর কিতাব আল কুরআনে বলা হয়েছে : ‘হে নবী পরিবার! আল্লাহ তো কেবল চান তোমাদের থেকে অপবিত্রতা দূর করতে এবং তোমাদেরকে সম্পূর্ণরূপে পবিত্র করতে।’ (সূরা আহযাব : ৩৩)

উপরিউক্ত আয়াত শরীফে ‘নবী পরিবার’ বলতে যে উল্লিখিত চারজনকে বুঝানো হয়েছে তা নবীপত্নী হযরত উম্মে সালামা (রা.) কর্তৃক বর্ণিত একটি হাদীস থেকে প্রমাণিত হয়। হযরত উম্মে সালামা (রা.) বর্ণনা করেন, “এই আয়াতটি আমার গৃহে অবতীর্ণ হয়। এই সময় আলী, ফাতিমা, হাসান, হোসাইন এই চারজন আমার গৃহে উপস্থিত ছিলেন। রাসূল (সা.) এই চারজনকে কম্বলে জড়িয়ে বলেন : ‘এরাই আমার আহলে বাইত’।”

এই হাদীসটি তিরমিজী শরীফ, বায়হাকী শরীফ, মুসতাদরাকে হাকিম প্রভৃতি নির্ভরযোগ্য হাদীসগ্রন্থে সংকলিত আছে। ইমাম হাকিম ও ইমাম তিরমিযী উভয়েই এই হাদীসকে সহীহ বলেছেন। উপরিউক্ত আয়াতের ব্যাখ্যায় আল্লামা সুয়ূতিও ‘তাফসীরে দুররে মানসূরে’ এ হাদীস উল্লেখ করেন। উপরিউক্ত হাদীস থেকে বোঝা যায়, নবীপত্নী হযরত উম্মে সালামা আহলে বাইতের অন্তর্ভুক্ত ছিলেন না। কারণ, উপরিউক্ত আয়াত শরীফ তাঁর ঘরে নাযিল হওয়া এবং তিনি স্বয়ং মহানবী (সা.)-এর স্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও মহানবী (সা.) তাঁকে ঐ সময় তাঁর চাদরে শামিল করেননি। এ প্রসঙ্গে আরো বর্ণিত আছে : মহানবী (সা.) যখন উপরিউক্ত চারজনকে জড়িয়ে ধরে দোয়া করছিলেন তখন হযরত উম্মে সালামা বলেছিলেন, ‘হে আল্লাহর রাসূল! আমিও কি এই দলের (অর্থাৎ আহলে বাইতের) অন্তর্ভুক্ত নই?’ এর জবাবে মহানবী (সা.) বলেছিলেন : ‘না, তবে তোমার নিজস্ব বিশেষ মর্যাদা রয়েছে, তোমার ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।’ আল্লাম সুয়ূতি প্রণীত ‘তাফসীরে দুররে মানসূর’।

এ প্রসঙ্গে আরো উল্লেখ করা যায়, ঐতিহাসিক মুবাহিলার ঘটনা। খ্রিস্টানদের সাথে মুবাহিলা করার জন্য আল্লাহ তাআলা মহানবী (সা.)-কে আদেশ দিয়ে সূরা আলে ইমরানের ৬১ নং আয়াত নাযিল করেছিলেন। মহানবী (সা.) আল্লাহর আদেশ অনুযায়ী হযরত ফাতিমা (আ.) হযরত আলী (আ.), হযরত হাসান (আ.) ও হযরত হোসাইন (আ.)-কে একত্র করে মুবাহিলার জন্য যাত্রা করেন। যাত্রার প্রাক্কালে উপরিউক্ত চারজনকে নিজের চাদরে জড়িয়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করেছিলেন : ‘হে আল্লাহ! এরাই আমার আহলে বাইত।’

মহানবী (সা.) উপরিউক্ত চারজনকে সাথে নিয়ে যে ঐ দোয়া করেছিলেন তা সহীহ মুসলিম শরীফের হাদীস থেকে প্রমাণিত। অথচ এই সময় মহানবী (সা.)-এর পরিবারে অন্যান্য স্ত্রীও উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু মহানবী (সা.) তাঁদের আর কাউকে সাথে নেননি।

আহলে বাইতের সম্মান ও মর্যাদার কথা এই স্বল্প পরিসরে বর্ণনা করা অসম্ভব। স্বয়ং আল্লাহ তাআলাই নবীর আহলে বাইতেক পুতপবিত্র করার কথা ঘোষণা করেছেন।

হাদীস শরীফে আহলে বাইতের সম্মান ও মর্যাদা নিয়ে অনেক বর্ণনা এসেছে। বিখ্যাত হাদীসে সাকালাইন-এ বলা হয়েছে : ‘আমি তোমাদের কাছে অতীব গুরুত্বপূর্ণ দুটি মূল্যবান বস্তু রেখে যাচ্ছি। একটি হলো আল্লাহর কিতাব আল-কুরআন এবং অন্যাটি হলো আমার আহলে বাইত। এ দুটি জিনিস হাউজে কাউসারে আমার সাথে মিলিত না হওয়া পর্যন্ত কখনও পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন হবে না।’ নির্ভরযোগ্য হাদীসগ্রন্থসমূহে এ হাদীসটি মুতাওয়াতির সূত্রে বর্ণিত হয়েছে। এই হাদীস অনুসারে আল-কুরআনের যে রকম গুরুত্ব তেমনি আহলে বাইতেরও গুরুত্ব প্রতিভাত হয়।

আরেকটি সহীহ হাদীসে বর্ণিত হয়েছে : ‘মনে রেখ। আমার আহলে বাইত হলো নূহের তরীসদৃশ, যে এতে আরোহণ করবে সে মুক্তি পাবে আর যে এর থেকে দূরে সরে যাবে সে ধ্বংস হয়ে যাবে।’ (দ্রষ্টব্য : মুসতাদরাক-ই হাকিম)

একবার ইমাম আহমাদ ইবনে হাম্বল (রহ.)-কে তাঁর পুত্র জিজ্ঞাসা করেছিলেন, ‘উম্মতের মধ্যে কারা শ্রেষ্ঠ ছিলেন।’ জবাবে ইমাম আহমাদ উত্তর দেন, ‘আবু বকর, উমর, উসমান।’ তাঁর পুত্র আবার জিজ্ঞেস করেন, ‘আলী ইবনে আবি তালিবের ব্যাপারে কী বলেন?’ তখন ইমাম আহমাদ জবাব দেন, ‘তিনি (আলী) তো আহলে বাইতের অন্তর্ভুক্ত, তাঁর সাথে অন্য কারো তুলনা হয় না।’ (দ্রষ্টব্য : আল-কুন্দুজী আল-হানাফী প্রণীত ইয়ানাবিউল মাওয়াদ্দাহ)