রবিবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৭ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

English

আগামী অর্থ-বছরের তেল খাতে আয় বাড়বে প্রায় ২৫ শতাংশ, আশা ইরানের

পোস্ট হয়েছে: ডিসেম্বর ৬, ২০১৬ 

news-image

নতুন ফার্সি বছরে প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেল ৫০ ডলারে বিক্রির আশা করছে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান। সে হিসাবে চলতি বাজেটের তুলনায় আগামী অর্থ-বছরের বাজেটে তেল খাতে আয় বাড়বে প্রায় ২৫ শতাংশ।

বর্তমান বাজেটে প্রতি ব্যারেল তেল থেকে প্রাক্কলিত আয় ৪০ ডলার ধরা হয়েছিল। আগামী ২১ মার্চ থেকে ইরানি ফারসি বছর শুরু হবে।

রোববার ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি সংসদে খসড়া বাজেট বিল পেশ করেছেন। আগামী অর্থ-বছরের এ খসড়া বাজেটে দেখা যায়, ইরান প্রতিদিন ২৪ লাখ ২০ হাজার ব্যারেল অপরিশোধিত তেল বিক্রি করবে এবং এ থেকে আয় হবে প্রায় ৩,৩০০ কোটি ডলার। আগামী অর্থ-বছরের জন্য তিনি তেল খাতে রাজস্বের একটি ইতিবাচক চিত্র তুলে ধরেন।

ড. রুহানি জোর দিয়ে বলেন, কোনো সীমাবদ্ধতা ছাড়াই অপরিশোধিত তেল উৎপাদন ও রপ্তানি পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাওয়া যাবে। ওপেকে ইরানের সাম্প্রতিক ‘বিজয়ের’ আলোকে এই সম্ভাবনাগুলো বিশেষভাবে ইতিবাচক হয়ে উঠবে।

তিনি সংসদকে বলেন, “আন্তর্জাতিক তেলের বাজারে ইরান এরইমধ্যে তার অংশ পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। আমরা আগামী কয়েক মাস ধরে অপরিশোধিত তেল উৎপাদন ও রপ্তানি বাড়ানোর ক্ষেত্রে আক্ষরিক অর্থেই কোনো বাধার মুখে পড়ব না।”

রুহানি সংসদে তার বক্তব্যে জোর দিয়ে বলেন, “তেল কূটনীতির ক্ষেত্রে ইরান বিপুল বিজয় অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের অধ্যবসায়ের মাধ্যমে আমরা কেবল ওপেকের অখণ্ডতাই সংরক্ষণ করি নি, বরং তেল উৎপাদন বাড়ানোর জন্য অনুমোদন পেতেও সক্ষম হয়েছি।” আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমে যাওয়ায় গত দু বছর দেশ কঠিন সময় পার করেছে বলেও মন্তব্য করেন প্রেসিডেন্ট রুহানি।

অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ওপেকের সাম্প্রতিক বৈঠকে যে চুক্তি হয়েছে তাতে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি দেশ তেলের উৎপাদন কমাতে বাধ্য হবে তবে সংস্থাটি ইরানকে প্রতিদিন ৯০ হাজার ব্যারেল বেশি তেল উৎপাদনের অনুমতি দিয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ দেশগুলো উৎপাদন কমানোর ফলে বিশ্ববাজারে তেলের দাম বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। সূত্র: পার্সটুডে